শি’আদের তৈরিকৃত ‘ঈদে মীলাদুন্নবী’ নামক নিকৃষ্ট বিদা’আত যেভাবে সুন্নীদের মাঝে সংক্রমিত হলঃ

শি’আদের তৈরিকৃত ‘ঈদে মীলাদুন্নবী’ নামক নিকৃষ্ট বিদা’আত

যেভাবে সুন্নীদেরCapture মাঝে সংক্রমিত হলঃ

আমাদের ভারতীয় উপমহাদেশে রবিউল আউয়াল মাসের ১২ তারিখে রাসুল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম-এর জন্ম তারিখ উপলক্ষে ‘ঈদে মীলাদুন্নবী’ পালন করা হয়ে থাকে। বাংলাদেশে সরকারী ছুটিও ঘোষণা করা হয়ে থাকে। আবার একে কেউ কেউ ‘সকল ঈদের সেরা ঈদ’ বলে থাকেন।

প্রচলিত মিলাদুন্নবীর সংক্ষিপ্ত ইতিহাসঃ

প্রথম যুগে সাহাবী, তাবেয়ী ও তাবে-তাবেয়ীদের মধ্যে রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম-এর জন্মদিন পালন করার কোনো প্রচলন ছিলনা। যদি থাকতো তাহলে রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম-এর সঠিক জন্মতারিখ নিয়ে মতবিরোধের কোনো সুযোগ থাকতো না। আসলে ইসলামে জন্মদিবস পালন করার কোনো বিধানই নেই। এজন্যই তৎকালীন সময়ে কেউ জন্মদিন পালন করতো না।

পরবর্তী যুগে অর্থাৎ রাসুল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম-এর মৃত্যুর কয়েকশত বছর পরে জাঁকজমকপূর্ণ উৎসবের মাধ্যমে, খানাপিনার আয়োজন করে, দান-সদকা করে, আনদ উৎসব করে এই ১২ই রবিউল আউয়ালকে রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম-এর কল্পিত জন্মদিন হিসাবে পালন করার রেওয়াজ শুরু হয়।


শিআরা সর্বপ্রথম মিলাদুন্নবী আবিস্কার করেঃ

ইতিহাস থেকে জানা যায় যে, মিশরের ফেরাউন জন্মোৎসব পালন করতো। ফেরাউন ছিল ইয়াহুদী। পরবর্তীতে এই রীতি খ্রিষ্টানদের মধ্যেও চলে আসে। যার ফলে তারা ২৫শে ডিসেম্বর ঈসা (আঃ)-এর জন্মদিন বা ‘ক্রিসমাস ডে’ পালন করে। যদিও এই তারিখের নির্ভরযোগ্য কোনো প্রমান নেই।

অতঃপর ইয়াহুদী ও খ্রিষ্টানদের এই জন্মদিবস পালনের রেওয়াজ শরীয়তের জ্ঞান বিবর্জিত কিছু মানুষদের মাধ্যমে মুসলিমদের মধ্যে সংক্রমিত হয়। সর্বপ্রথম মুসলিম নামধারী শি’আরা এই জঘন্য প্রথা চালু করে। কালক্রমে তা সুন্নীদের মাঝে বিস্তার লাভ করে।

৩৫৮ হিজরী (৯৬৯ খ্রিষ্টাব্দ) থেকে ৫৬৭ হিজরী (১১৭২ খ্রিষ্টাব্দ) পর্যন্ত রাফেযী ইসমাইলী শি’আগন মিশর শাসন করে। এই দুই শতাব্দীর মধ্যে শি’আ শাসকগণ রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় দু’ই ঈদ (ঈদুল ফিতর ও ঈদুল আযহা) ছাড়াও আরও বিভিন্ন দিবস পালন করতো, তন্মধ্যে অধিকাংশই ছিল জন্মদিন। তারা অত্যন্ত আনন্দ উৎসবের সাথে ৭টি জন্মদিন পালন করতো।
১) রাসুল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম-এর জন্মদিন।
২) আলী (রাঃ)-এর জন্মদিন।
৩) ফাতেমা (রাঃ)-এর জন্মদিন।
৪) হাসান (রাঃ)-এর জন্মদিন।
৫) হুসাইন (রাঃ)-এর জন্মদিন।
৬) তাদের জীবিত খলীফার জন্মদিন।
৭) ঈসা (আঃ)-এর জন্মদিন।
[আল-মাকরীযী, আহমাদ ইবন আলী, আল-মাওয়ায়িজ ওয়াল ইতিবার বিন যিকরিল খুতাতি ওয়াল আসার; পৃষ্ঠা নঃ ৪৯০-৪৯৫]

আহমদ ইবন আলী আল-কালকাশান্দী (৮২১ হিজরী) বলেন, রবিউল আউয়াল মাসের ১২ তারিখে ফাতেমী শাসক মীলাদুন্নবী উদযাপন করতেন। তারা এই উপলক্ষে বিপুল পরিমান মিষ্টান্ন দ্রব্য করতেন। এই মিষ্টান্ন ৩০০ পিতলের খাঞ্চায় ভরা হতো। মীলাদের রাত্রিতে এই মিষ্টান্ন বিতরন করা হতো। তৎকালীন শাসক প্রাসাদের সামনে ব্যালকনিতে বসতেন। আসর নামাযের পর বিচারপতি ও বিভিন্ন শ্রেণীর কর্মকর্তাদেরকে সঙ্গে নিয়ে আজহার মসজিদে প্রবেশ করে কুরআন তিলাওয়াত ও বিভিন্ন আলোচনার মাধ্যমে অনুষ্ঠান পরিচালনা করতেন। এভাবে তারা আলী (রাঃ)-এর জন্মদিনও পালন করতেন। [আল-কালকাশান্দী, সুবহুল আ’শা ৩/৪৯৮-৪৯৯]

আহমদ ইবন আলী আল-মাকরীযী (৮৪৫ হিজরী) বলেন, এ সকল জন্মদিনের উৎসব ছিল তাদের খুবই বড় ও মর্যাদাপূর্ণ উৎসব। এ সময়ে মানুষেরা সোনা ও রুপার স্মারক তৈরি করতো, মিষ্টান্ন ও বিভিন্ন ধরণের খাবার তৈরি করে বিতরন করতো। [আল-মাকরীযী, আল-মাওয়ায়িজ ওয়াল ইতিবার, পৃষ্ঠা নঃ ৪৯১]

এরপর সুন্নীদের মাঝে যেভাবে মিলাদুন্নবীর প্রচলন ঘটেঃ

শি’আদের দ্বারা প্রচলিত এই মীলাদুন্নবী মিশরের কায়রো পর্যন্তই সীমাবদ্ধ ছিল। শি’আদের এই অনুষ্ঠান সুন্নীদের কাছে জনপ্রিয় হয়নি। সুন্নীদের মাঝে মিলাদুন্নবীর প্রবর্তক ছিলেন ইরাকের ‘ইরবিল’ প্রদেশের গভর্নর আবু সাঈদ কুকুবুরী (৬৩০ হিজরী)। [আস-সালেহী, সীরাত শামিয়্যাহ ১/৩৬২]

কুকুবুরী অত্যন্ত ধার্মিক ছিলেন। ইমাম যাহাবী বলেন, তিনি ছিলেন সবচেয়ে বেশি ধার্মিক, সবচেয়ে বেশি দানশীল, সমাজকল্যাণব্রত ও মানবসেবী বাদশাহদের অন্যতম। প্রতি বছর মীলাদুন্নবী উদযাপনের জন্য তিনি যে পরিমান অর্থ ব্যয় করতেন, তা সবার মুখে প্রবাদের মতো উচ্চারিত হতো। [যাহাবী, নুবালা ৩/২০৮]

ঐতিহাসিকদের মতে কুকুবুরী তার শাসনামল ৫৮৩ হিজরী থেকে ৬৩০ হিজরীর মধ্যে সর্বপ্রথম সম্ভবত ৬০৪ হিজরীতে (মতান্তরে ৬২৫ হিজরী) এই মীলাদুন্নবী উদযাপন শুরু করেন। এরপর ধীরে ধীরে এটা সুন্নীদের মাঝে প্রসিদ্ধি লাভ করে। বাগদাদ, মাউসিল, জাযিরা, সিনজার, নিসিসবিন ও পারস্যের বিভিন্ন পার্শ্ববর্তী এলাকার অনেক আলেম, কারী, সুফী, বক্তা, ওয়ায়েজ ও কবি কুকুবুরীর এই মিলাদুন্নবী অনুষ্ঠানে জমায়েত হতে থাকেন।

খোলা প্রান্তরে ২০টি বা তারও বেশি বিশাল বিশাল কাঠের প্যান্ডেল তৈরি করা হতো। সেখানে থাকতো গায়কদল, অভিনয়কারীদের দল এবং বিভিন্ন খেলাধুলা দেখানোর দল। এ সময় সেখানে স্বাভাবিক জীবনযাত্রা ও কাজকর্ম বন্ধ হয়ে যেত। সকলের একমাত্র কাজ হয়ে যেত এসকল প্যান্ড্যালে ঘুরে বেড়ানো ও আনন্দ উল্লাস করা।

কুকুবুরী মীলাদুন্নবীর ২দিন আগেই অগনিত উট, গরু, ছাগল, ভেড়া মাঠে পাঠিয়ে দিতেন। তবলা বাজিয়ে, গান গেয়ে, আনন্দ উচ্ছাসের মধ্য দিয়ে এই সকল প্রাণীকে মাঠে পৌঁছানো হতো। সেখানেই সেগুলোকে জবাই করে রান্নার আয়োজন করা হতো। মীলাদুন্নবীর রাতে মাগরিবের নামাজের পর সামা গান-বাজনার আয়োজন করা হতো। পুরো এলাকা মোমবাতি প্রজ্জলন করে আলোকসজ্জা করা হতো। কুকুবুরী প্রতিটি প্যান্ড্যালে গিয়ে তাদের গান শুনতেন, খেলা ও অভিনয় দেখতেন। পরে সুফীদের খানকায় রাত কাটাতেন এবং সামা গান শুনে সুফীদের সাথে নাচতেন।

কুকুবুরীর মিলাদুন্নবী উপলক্ষে আয়োজিত দাওয়াতে তার দস্তরখানে থাকতো, প্রায় পাঁচশত আস্ত দুম্বার ভুনা, দশ হাজার মুরগী, লক্ষাধিক খাবারের পাত্র, ত্রিশ হাজার মিষ্টির খাঞ্চা। তার দাওয়াতে উপস্থিত হতেন সমাজের গণ্যমান্য আলেমগন, সুফীগন ও সাধারন মানুষজন। উপস্থিত সবাইকে কুকুবুরী মুক্তহস্তে হাদীয়া ও উপঢৌকন প্রদান করতেন। আর এভাবেই জমজমাট ও জৌলুসপূর্ণ আয়োজনের মাধ্যমে শি’আদের দ্বারা প্রচলিত মিলাদুন্নবীর অনুষ্ঠান খুব দ্রুত সুন্নী মহলে সমাদৃত হয় ও বিভিন্ন অঞ্চলে ছড়িয়ে পড়তে থাকে।

কুকুবুরীকে সহায়তা করেন স্পেনের আবুল খাত্তাব উমার ইবনুল হাসান ইবনু দেহইয়াহ নামক এক দরবারী আলেম। তিনি মীলাদুন্নবীর সমর্থনে একটি কিতাব লিখেন ‘কিতাবুত তানভীর ফি মাওলিদিস সিরাজিল মুনীর’। এ বইটিতে তিনি অনেক জাল ও বানোয়াট হাদীস জমা করে করে কুকুবুরীর নিকট পেশ করেন। কুকুবুরী খুশি হয়ে তাকে সঙ্গে সঙ্গে এক হাজার স্বর্ণমুদ্রা বখশিশ দেন। [তারিখ ইবন খাল্লিকান, ওয়াফাইতুল আ’য়ান ৩য় খণ্ড, পৃষ্ঠা নঃ ১২২]

যদিও তৎকালীন সময়ে কিছু আলেম এর বিরোধিতা করেছিলেন, তারপরও সাধারন মুসলমানদের মাঝে এর জনপ্রিয়তা বাড়তে থাকে এবং ধীরে ধীরে অন্যান্য দেশেও ছড়িয়ে পরে।

ভারতীয় উপমহাদেশে সর্বপ্রথম শিআরাই এই মিলাদুন্নবী আমদানি করেঃ

ভারতের মোঘল সম্রাটদের কিছু মন্ত্রী ও পরামর্শদাতা ছিল শি’আ। মোঘল সম্রাট হুমায়ুন ও সম্রাট আকবরের মা ছিল শি’আ। আকবরের অভিভাবক বৈরাম খাঁ কট্টর শি’আ ছিলেন। তারাই উপমহাদেশে সুন্নীদের মাঝে মিলাদুন্নবীর প্রচলন ঘটায়। [মিলাদুন্নবী, আইনুল বারী আলিয়াভি, পৃষ্ঠা নঃ ৩৩]

যে তারিখকে কেন্দ্র করে মিলাদুন্নবী পালন করা হয় তার ভিত্তি কতটুকু সঠিক? রাসুল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম যে বছরে জন্মগ্রহন করেছেনঃ

রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম-এর জন্মের সাল সম্পর্কে কায়স ইবন মাখরামা (রাঃ) হতে একটি দুর্বল সনদে বর্ণিত হয়েছে যেঃ ‘’আমি ও রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম দু’জনই ‘হাতির বছরে’ জন্মগ্রহন করেছি’’ [তিরমিযি ৩৬১৯ (আলবানি দুর্বল বলেছেন)]

‘হাতির বছর’ বলা হয়, যে বছরে আবরাহা তার হস্তি বাহিনী নিয়ে কাবা ঘর ধ্বংসের জন্য মক্কা আক্রমন করেছিল। ঐতিহাসিকদের মতে এ বছর ৫৭০ বা ৫৭১ খ্রিষ্টাব্দ ছিল। গ্রহণযোগ্য বর্ণনা মতে, এই বছরেই আল্লাহর রাসুল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম জন্মগ্রহন করেছেন।

[আকরাম জিয়া আর উমারী, আস-সীরাতুন নাবাবীয়াহ আস-সাহীহাহ ১/৯৬-৯৮; মাহদী রেজাকুল্লাহ আহমাদ, আস-সীরাতুন নাবাবীয়াহ, পৃষ্ঠা নঃ ১০৯-১১০; সীরাত ইবন হিশাম, পৃষ্ঠা নঃ ৩৮; সফিউর রহমান মুবারকপুরী, আর-রাহীকুল মাখতুম, পৃষ্ঠা নঃ ৭৬; আসাদুল্লাহ আল-গালীব, সীরাতুর রাসুল, পৃষ্ঠা নঃ ৫৪-৫৫; আবদুল্লাহ জাহাঙ্গীর, এহইয়াউস সুনান পৃষ্ঠা নঃ ৫১৯]


রাসুল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম যেদিন জন্মগ্রহন করেছেনঃ

আবু কাতাদা (রাঃ) হতে বর্ণিত। তিনি বলেন, রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম-কে সোমবার দিন সিয়াম পালন করা সম্পর্কে জিজ্ঞাসা করে হলে, তিনি বলেনঃ ‘’এই দিনে আমি জন্মগ্রহন করেছি এবং এই দিনেই আমি নবুয়ত পেয়েছি।’’ [সহীহ মুসলিম ১৯৭৮-(১৯৮/০০০)]

আবদুল্লাহ ইবন আব্বাস (রাঃ) হতে বর্ণিত। তিনি বলেন, রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম সোমবার নবুয়ত লাভ করেন, সোমবারে ইন্তেকাল করেন, সোমবারে মক্কা থেকে হিজরত করে মদীনার পথে রওয়ানা হন, সোমবারে মদীনা পৌঁছান এবং সোমবারেই তিনি হাজরে আসওয়াদ উত্তোলন করেন।’’ [মুসনাদ আহমাদ ৪/১৭২-১৭৩ নঃ ২৫০৬]

মাহমুদ পাশা, যিনি কনস্টান্টিনোপলের বিখ্যাত জ্যোতির্বিদ তিনি তার যুগ থেকে ক্যালেন্ডার ঘেঁটে প্রমান করেছেন যে, সোমবার দিনটি ১২ই রবিউল আউয়াল ছিল না, বরং তা ৯ই রবিউল আউয়াল ছিল। আর ১২ই রবিউল আউয়াল ছিল বৃহস্পতিবার। এজন্য সঠিক বর্ণনা ও জ্যোতির্বিদ্যা অনুযায়ী ৯ই রবিউল আউয়ালকে নির্ভরযোগ্য মনে করা হয়। [কাসাসুল কুরআন, ৪র্থ খণ্ড, পৃষ্ঠা ন ২৫৩-২৫৪]

কোন মাসের কোন তারিখে রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম জন্মগ্রহন করেছেনঃ

রাসুলুল্ললাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম-এর সহীহ হাদীসে তাঁর জন্মমাস ও জন্মতারিখ সম্পর্কে ওয়াহী ভিত্তিক সুস্পষ্ট কোনো তথ্য পাওয়া যায় না। সাহাবীগনের মাঝেও এ বিষয়ে কোনো সুনির্দিষ্ট মত প্রচলিত ছিল না। এ কারণে পরবর্তী যুগের আলেম ও ঐতিহাসিকগণ রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম-এর জন্মতারিখ সম্পর্কে মতভেদ করেছেন। ইবন হিশাম, ইবন সা’দ, ইবন কাসীর, কাসতালানী ও অন্যান্য ঐতিহাসিক ও সীরাতুন্নবী লেখকগন নিম্নলিখিত মতামত উল্লেখ করেছেন।

রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম-এর জন্মতারিখ সম্পর্কে আলেমদের ১২টি মতামতঃ
১) কারো মতে তাঁর জন্মতারিখ অজ্ঞাত। তিনি সোমবারে জন্মগ্রহন করেছেন, শুধু এটুকুই জানা যায়। তাঁর জন্মমাস বা জন্মতারিখ সম্পর্কে জানা যায় না। এ বিষয়ে আলোচনা তারা অবান্তর মনে করেন।
২) কারো কারো মতে, তিনি মুহারররাম মাসে জন্মগ্রহন করেছেন।
৩) কারো মতে তিনি সফর মাসে জন্মগ্রহন করেছেন।
৪) কারো মতে তিনি রবিউল আউয়াল মাসের ২ তারিখে জন্মগ্রহন করেছেন।
৫) কারো মতে তিনি রবিউল আউয়াল মাসের ৮ তারিখে জন্মগ্রহন করেছেন।
৬) কারো মতে তিনি রবিউল আউয়াল মাসের ১০ তারিখে জন্মগ্রহন করেছেন।
৭) কারো মতে রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম রবিউল আউয়াল মাসের ১২ তারিখে জন্মগ্রহন করেছেন। এ মতটি ইবন ইসহাক সনদ বিহীনভাবে উল্লেখ করেছেন। কোথা হতে তিনি এই তথ্যটি সংগ্রহ করেছেন, তাও তিনি জানাননি বা সনদসহ প্রথম শতাব্দীর কোনো সাহাবী বা তাবেয়ী থেকে মতটি বর্ণনা করেননি। এজন্য অনেক গবেষক এই মতটিকে দুর্বল বলে উল্লেখ করেছেন। আশ্চর্যের বিষয় এই দুর্বল মতটিই পরবর্তীতে প্রসিদ্ধি লাভ করেছে।
৮) কারো মতে তিনি রবিউল আউয়াল মাসের ১৭ তারিখে জন্মগ্রহন করেছেন।
৯) কারো মতে তিনি রবিউল আউয়াল মাসের ২২ তারিখে জন্মগ্রহন করেছেন।
১০) কারো মতে তিনি রবিউস সানী মাসে জন্মগ্রহন করেছেন।
১১) কারো মতে তিনি রজব মাসে জন্মগ্রহন করেছেন।
১২) কারো মতে তিনি রমাদান মাসে জন্মগ্রহন করেছেন।
[দ্রষ্টব্যঃ ইবন সা’দ, আত-তাবাকাতুল কুবরা ১/১০০-১০১; ইবন কাসির, আল বিদায়া ওয়ান নিহায়া ২/২১৫; আল-কাসতালানী, আহমাদ বিন মুহাম্মাদ, আল- মাওয়াহিবুল লাদুন্নিয়া ১/৭৪-৭৫; আল-যারকানী, শারহুল মাওয়াহিব আল-লাদুন্নিয়া ১/২৪৫-২৪৮; ইবন রাজাব, লাতায়েফুল মায়ারেফ ১/১৫০]

পরবর্তীতে মিলাদুন্নবীকে সকল ঈদের সেরা ঈদ বলে ঘোষণা করা হয়। অথচ মুসলিমদের বাৎসরিক ঈদ মাত্র দুটি- একটি ঈদুল ফিতর অপরটি ঈদুল আযহাঃ
আয়িশাহ (রাঃ) হতে বর্ণিত। তিনি বলেন, রাসুল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেছেনঃ ‘’প্রত্যেক জাতির জন্যই আনন্দোৎসব রয়েছে। আর এটা (ঈদুল ফিতর ও ঈদুল আযহা) হল আমাদের আনন্দের দিন।’’ [বুখারী ৯৪৯, ৯৫২, ৯৮৭, ৩৯৩১; মুসলিম ১৪৭৯-(ক)-(১৬/৮৯২), ১৪৮০-(১৭/…)]

আনাস (রাঃ) হতে বর্ণিত। তিনি বলেন, নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম মদীনায় আগমন করার পর দেখেন, মদীনাবাসীরা নির্দিষ্ট দুটি দিনে খেলাধুলা ও আমোদ-প্রমোদ করে থাকে। নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম জিজ্ঞেস করলেন, এ দুটি কিসের দিন? তারা বলল, ইসলামের পূর্বে জাহেলিয়াতের সময় এ দিন দুটিতে আমরা খেলাধুলা করতাম। তখন রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বললেন, এ দু দিনের পরিবর্তে আল্লাহ তায়ালা তোমাদের জন্য আরও উত্তম দুটি দিন দান করেছেন। এর একটি হল ঈদুল আযহার দিন অপরটি ঈদুল ফিতরের দিন।’’ [নাসায়ী ১৫৫৬; আবু দাউদ ১১৩৪; মিশকাতুল মাসাবীহ ১৪৩৯ (আলবানি সহীহ বলেছেন)]

এছাড়া জুমআর দিনকে সাপ্তাহিক ঈদের দিন হিসাবে অভিহিত করা হয়েছেঃ
ইবন আব্বাস (রাঃ) হতে বর্ণিত। রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেছেনঃ ‘’নিশ্চয়ই আল্লাহ এ দিনকে ঈদের দিন হিসাবে নির্ধারণ করেছেন। অতএব যে ব্যক্তি জুম’আর সলাত আদায় করতে আসবে, সে যেন গোসল করে এবং সুগন্ধি থাকলে তা শরীরে লাগায়। আর মেসওয়াক করাও তোমাদের কর্তব্য।’’ [ইবন মাযাহ ১০৯৮; মিশকাতুল মাসাবীহ ১৩৯৯ (আলবানি হাসান বলেছেন)]

উবায়েদ ইবন সাব্বাক (রহঃ) হতে বর্ণিত। তিনি বলেন, রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম কোনো এক জুম’আর দিন বলেছেনঃ “হে মুসলিমগণ! এ দিন, যে দিনকে আল্লাহ তায়ালা ঈদ হিসাবে গণ্য করেছেন। অতএব তোমরা এ দিন গোসল করবে। যার কাছে সুগন্ধি আছে, সে তা ব্যাবহার করলে কোনো ক্ষতি নেই। তোমরা অবশ্য অবশ্যই মেসওয়াক করবে।’’ [মিশকাতুল মাসাবীহ ১৩৯৮ (আলবানি হাসান বলেছেন)]

বাৎসরিক ঈদ ঈদুল ফিতর ও ঈদুল আযহা এবং সাপ্তাহিক ঈদ জুম’আ ছাড়া অন্য কোনো দিনকে ঈদের দিন হিসাবে পালন করা অথবা বিশেষ কোনো আমল করা নিঃসন্দেহে ভ্রষ্টতা। কারন এরুপ নির্দেশনা আল্লাহ ও তাঁর রাসুল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম থেকে প্রমানিত নয়। রাসুল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম নবুওতের ২৩ বছরে কখনোই নিজের জন্মদিন পালন করেননি। কোনো সাহাবী পালন করেছেন বলেও প্রমানিত নয়। এমনকি চারজন খলীফাও রাষ্ট্রীয়ভাবে অথবা একাকী এই দিবস পালন করেননি। চার ইমাম থেকেও এর কোনো প্রমান নেই। সুতরাং ১২ রবিউল আউয়াল নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম-এর জন্মদিন পালন করা ও এই উপলক্ষে কোনরূপ ইবাদত করা শরীয়ত সম্মত নয়, বরং নিঃসন্দেহে বিদা’আত।

সুতরাং ১২ই রবিউল আউয়ালকে কেন্দ্র করে ও এই দিনকে ঈদে মিলাদুন্নবী ঘোষণা করে জামা’আতবদ্ধ হয়ে অথবা একাকী, মসজিদে অথবা বাড়িতে বিশেষ কোনো নফল ইবাদতে লিপ্ত হওয়ার কোনো সুযোগ নেই এবং এরুপ করা নিঃসন্দেহে বিদা’আতের অন্তর্ভুক্ত।

বিদাআতি আমল আল্লাহর নিকট কবুল হবে না এবং বিদাআতের পরিনাম জাহান্নামঃ

নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম-এর অনুসরণ বাদ দিয়ে মনগড়াভাবে অথবা নিজস্ব খেয়াল-খুশি মতো ইবাদতের সুযোগ ইসলামে নেই। ইসলামে ইবাদত হচ্ছে ‘তাওকিফী’। অর্থাৎ কোনো কিছুকে ইবাদত হিসাবে সাব্যস্ত করতে হলে তার জন্য দলীল লাগবে। দলীল বিহীন কোনো কাজকে ইবাদত বলার কোনো সুযোগ নেই।


ইবাদত কবুল হওয়ার অন্যতম প্রধান শর্ত দুটিঃ
১-ইখলাসঃ

দলীল, ”তাদেরকে এ ছাড়া আর অন্য কোন হুকুমই দেয়া হয়নি যে, তারা আল্লাহর ইবাদত করবে খাঁটি মনে একনিষ্ঠভাবে তাঁর আনুগত্যের মাধ্যমে’’ (সূরা আল বাইয়েনাহ ৯৮/৫)

২-রাসুল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম-এর অনুসরণ:
আয়িশাহ (রাঃ) হতে বর্ণিত। তিনি বলেন, নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেছেনঃ ‘’যে ব্যাক্তি আমার এই দ্বীনে (নিজের পক্ষ থেকে) কোন নতুন কথা উদ্ভাবন করল, তা প্রত্যাখ্যাত।’’ [সহীহ বুখারী ২৬৯৭; মুসলিম ৪৩৮৪-(১৭/১৭১৮), ৪৩৮৫-(১৮/…); ইবন মাযাহ ১৪; আবু দাউদ ৪৬০৬; রিয়াদুস স্বালিহিন ১৭৩]

জাবির (রাঃ) হতে বর্ণিত। রাসুল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেছেনঃ ‘’নিঃসন্দেহে সর্বোত্তম কথা আল্লাহর কিতাব এবং সর্বোত্তম রীতি মুহাম্মাদ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম- এর রীতি। আর নিকৃষ্টতম কাজ (দ্বীনে) নব আবিষ্কৃত কর্মসমূহ এবং প্রত্যেক বিদ’আত ভ্রষ্টতা।’’ [সহীহ মুসলিম ১৪৩৫(ক)-(৪৩/৮৬৭); ইবন মাযাহ ৪৫ নাসায়ীর বর্ণনায়, ‘সকল বিদা’আতের পরিণতি জাহান্নাম’ নাসায়ী ১৫৭৮]

আবু নাজীহ ইরবায ইবন সারিয়াহ (রাঃ) হতে বর্ণিত। রাসুল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেছেনঃ ”স্মরণ রাখ! তোমাদের মধ্যে যে আমার পর জীবিত থাকবে, সে অনেক মতভেদ বা অনৈক্য দেখবে। সুতরাং তোমরা আমার সুন্নাত ও সুপথপ্রাপ্ত খুলাফায়ে রাশেদীনের রীতিকে আঁকড়ে ধরবে এবং তা দাত দিয়ে মজবুত করে ধরে থাকবে। আর তোমরা দ্বীনে নব উদ্ভাবিত কর্মসমূহ (বিদ’আত) থেকে বেঁচে থাকবে। কারণ প্রত্যেক বিদ’আতই ভ্রষ্টতা। ’’ [আবু দাউদ ৪৬০৭; রিয়াদুস সালিহীন ১৬১ (আলবানি সহীহ বলেছেন)]

সুতরাং আমল করলেই তা গ্রহণযোগ্য হবে না, যতক্ষণ না একমাত্র আল্লাহর সন্তুষ্টির উদ্যেশে ও রাসুল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম-এর সুন্নাহ অনুযায়ী হবেঃ

মহান আল্লাহ তায়ালা বলেনঃ ‘’বল- আমি তোমাদেরকে কি সংবাদ দেবো নিজেদের আমলের ক্ষেত্রে কারা সবচেয়ে বেশী ক্ষতিগ্রস্ত? তারা হল সেই সব লোক দুনিয়ার জীবনে যাদের চেষ্টা সাধনা ব্যর্থ হয়ে গেছে, আর তারা নিজেরা মনে করছে যে, তারা সঠিক পথেই আছে।’’ (সূরা কাহাফ ১৮/১০৩-১০৪)

মহান আল্লাহ তায়ালা আরও বলেনঃ ‘’কতক মুখ সেদিন নিচু হবে। আমল করে ক্লান্ত-শ্রান্ত হয়ে তারা জলন্ত আগুনে প্রবেশ করবে।’’ (সূরা গাশিয়াহ ৮৮/২-৩)

নেকি লাভের সকল কর্ম রাসুল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম শিক্ষা দিয়েছেন, নতুনত্বের কোনই অবকাশ নেই। উম্মাতকে আল্লাহর নৈকট্যের সকল পথ বলে দেয়া রাসুল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম-এর দায়িত্ব এবং তিনি তা যথাযথভাবে পালন করেছেন। তাঁর সুন্নাতের বাইরে গিয়ে আল্লাহর নৈকট্য বা সাওয়াব অর্জনের কোন পথ নেইঃ আব্দুর রহমান আব্দ রাব্বিল কা’বা (রাঃ) হতে বর্ণিত। রাসুল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেনঃ ‘’আমার পূর্বে প্রত্যেক নাবীরই দায়িত্ব ছিল যে, তিনি তাঁর উম্মাতের জন্য যত ভালো বিষয় জানেন সে বিষয়ে তাদেরকে নির্দেশনা দান করবেন। এবং তিনি তাদের জন্য যত খারাপ বিষয়ের কথা জানেন সেগুলি থেকে তাদেরকে সাবধান করবেন।’’ [সহীহ মুসলিম ৪৬৭০-(৪৬/১৮৪৪)]

রাসুল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম আরও বলেনঃ ‘’জান্নাতের নিয়ে যাওয়ার ও জাহান্নাম থেকে দূরে থাকার সকল বিষয়ই তোমাদেরকে বর্ণনা করে দেয়া হল।’’ [তাবারানী, আল-মুজাম আল-কাবীর ২/১৫৫-১৫৬, নঃ ১৬৪৭]

ইসলাম সমর্থিত রীতি ছাড়া অন্য পথে আমলের পরিণতিঃ

আল হারিস আল-আশ’আরী (রাঃ) হতে বর্ণিত। রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেনঃ ”আর যে লোক জাহেলিয়াতের আমলের রীতিনীতির দিকে আহবান করে, সে জাহান্নামীদের অন্তর্ভুক্ত। জনৈক ব্যাক্তি বলল, হে আল্লাহর রাসুল! সে নামাজ আদায় করলেও রোজা রাখলেও? তিনি বললেনঃ হাঁ, সে নামাজ-রোজা করলেও।” [সুনান তিরমিযি ২৮৬৩ (আলবানি হাদীসটিকে সহীহ বলেছেন)]

বিজাতীয় ও অমুসলিমদের অনুষ্ঠান বর্জন করা এবং ইসলামের দেয়া বিধান ও উৎসবই একজন মুসলিমের জন্য পালনীয়। এবং এতেই একজন মুসলিম কল্যাণ লাভ করতে পারে। নতুবা যারা অমুসলিমদের উদ্ভাবিত রীতিনীতি ও তাদের আনন্দ উৎসবে উল্লাসিত হবে সে তাদেরই অন্তর্ভুক্ত হিসাবে গণ্য হবে। রাসুল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেনঃ ”যে ব্যক্তি বিজাতির সাদৃশ্য অবলম্বন করে সে তাদেরই দলভুক্ত গণ্য হবে।” [আবু দাউদ ৪০৩১ (আলবানি হাসান বলেছেন)]

মহান আল্লাহ তায়ালা ও তাঁর রাসুল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম-এর মাধ্যমে যা কিছু এসেছে তাতেই আনন্দ লাভ করা একজন মুমিনের কর্তব্য। মহান আল্লাহ তায়ালা বলেনঃ ‘’বল- আল্লাহর অনুগ্রহ ও দয়ার বদৌলতে (যা এসেছে), এজন্য তারা আনন্দিত হোক।’’ [সূরা ইসরা ১০/৫৮]

মহান আল্লাহ তায়ালা আমাদের বিদা’আত মুক্ত হয়ে সুন্নাহ সম্মত ইবাদত পালনের তৌফিক দান করুন।


সহায়ক গ্রন্থঃ
১) আর-রাহীকুল মাখতুম, সফিউর রহমান মোবারকপুরী।
২) সীরাতে ইবন হিশাম।
৩) সীরাতুর রাসুল, আসাদুল্লাহ আল-গালীব।
৪) ফাতাওয়া আরাকানুল ইসলাম, সালিহ আল উসাইমিন।
৫) যাদুল মা’আদ- ইবনুল কাইয়িম।
৬) বিদা’আত হতে সাবধান, আব্দুল আযীয বিন আবদুল্লাহ বিন বায।
৭) বিদা’আতের ভয়াবহতা, সালিহ আল উসাইমিন।
৮) বিদা’আত থেকে সাবধান, সালিহ আল ফাওযান।
৯) এহইয়াউস সুনান, আবদুল্লাহ জাহাঙ্গীর।
১০) মীলাদ প্রসঙ্গ, আসাদুল্লাহ আল-গালীব।
১১) নবীদের কাহিনী, আসাদুল্লাহ আল-গালীব।
১২) ঈদে মিলাদুন্নবী, মুহাম্মাদ শহীদুল্লাহ খান মাদানী।
১৩) বার মাসে তের পরব, আব্দুল হামীদ ফাইযী।
১৪) মিলাদুন্নবী, হাবীবুল্লাহ খান রহমানী।
১৫) মীলাদ জায়িয ও নাজায়িযের সীমারেখা, হুসাইন বিন সোহরাব।
১৬) মৌলুদ শরীফ, আবু তাহের বর্ধমানী।
১৭) মীলাদ, শবে বরাত মীলাদুন্নবী কেন বিদা’আত, হাফেয মুহাম্মাদ আইয়ুব।
১৮) খুতবাতুল ইসলাম, ড. আবদুল্লাহ জাহাঙ্গীর।

(জনাব আনিসুর রহমান ভাইয়ের ফেসবুক টাইমলাইন থেকে সংগৃহীত)

One thought on “শি’আদের তৈরিকৃত ‘ঈদে মীলাদুন্নবী’ নামক নিকৃষ্ট বিদা’আত যেভাবে সুন্নীদের মাঝে সংক্রমিত হলঃ

আপনার মতামত বা প্রশ্ন লিখুন।

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out /  Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out /  Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out /  Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out /  Change )

Connecting to %s